১০ টি অবিশাস্য ভবন যা খুব শিগ্রই নির্মাণ হচ্চে

কালের বিবর্তনে আধুনিক সভ্যতার বিকাশ দিন দিন অবিশাস্য হয়ে উঠছে। আধুনিক স্থাপত্যগুলোর কারুকাজ কল্পনাকেও হার মানিয়ে দিচ্ছে। হয়তোবা কয়েক যুগের মধ্যেই আমরা এমন এক আধুনিক পৃথিবীতে বাস করবো যা আমরা চলচ্চিত্রে বরাবর দেখে আসছি।

আজকে আপনাদের সামনে আমরা উপস্থাপন করছি এমন ১০ টি ভবিষতের প্রকল্প।

লাখটা সেন্টার, সেইন্ট পিটার্সবার্গ

ফিনল্যান্ডের উপসাগরে তীরবর্তী এলাকায় এই ৮৭ তলা উঁচু ভবনটি ‘গাজপ্রম এনইএফটি’ এর অফিসিয়াল সদর দপ্তর হিসেবে খুব শিগ্রই নির্মাণ হতে যাচ্চে। ভবনটি ইউরোপ এর মধ্যে সবচেয়ে উঁচু ভবন হিসেবে নির্মাণ হবে যা মস্কো টাওয়ার থেকেও উচ্চতায় বেশি হবে। সবমিলিয়ে ৪০০,০০০ বর্গফুট জায়গা নিয়ে নির্মাণ হবে।

দুবাই টাওয়ারস  — দি লেগুনস

এই দালানগুলোর নকশার কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। খুব শীগ্রই এই অবিশাস্য নকশার দৈত্যাকৃতি দালানগুলোর নির্মাণ কাজ দুবাই এ ৫ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে শুরে হতে যাচ্ছে, যাতে থাকবে বিশাল কমপ্লেক্স, জলপথ, বন্দর, পর্যটক স্থান, ও আরো অনেক কিছু।

স্কেলি টাওয়ার, জহুহাই, চায়না

চায়নার জহুহাইতে দুই নদীর মিলনস্থলে ১০০ তলা উঁচু এই পর্যবেক্ষণ টাওয়ারটি নির্মাণ করা হবে। দেখতে অনেকটা সর্পিল আকৃতির মাছ এর মতো হবে এবং বাহিরের অংশটি অ্যালুমিনিয়াম এর তৈরী দড়ির নকশা দিয়ে আচ্ছাদিত থাকবে।

ড্যানসিং ড্রাগনস, সিওল

দক্ষিণ কোরিয়ার সিওল এর ব্যাবসায়িক এলাকা য়ংসং এর ১৫ টি বিশাল স্থাপত্য প্রকল্পের শেষটি হলো এই ড্যানসিং ড্রাগনস ভবন। প্রকল্পিতে থাকবে ২ টি বিশাল উঁচু টাওয়ার (৮৮ তলা ও ৭৭ তলা), বাহিরের অংশ অনেকটা ড্রাগনের চামড়ার মতো করে নকশা করা হবে।

এন্ডলেস সিটি, লন্ডন

এই অস্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক প্রকল্পটি লন্ডনে নির্মিত হওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। ভবনটিতে প্রচুর সবুজ প্রাকৃতিক পরিবেশ থাকবে এবং প্রতিটি বারান্দায় জুলন্ত ফুলের বাগান থাকবে।

ইনফাইনাইট হাউস, সিডনি

এই ভবনটি দেখতে হবে অনেকটা ভবিষ্যতের বাড়ির মতো। নতুন এই বিলাসবহুল ভবনটি অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে নির্মাণ হচ্চে যাতে থাকবে জাঁকজমক কামরা ও রেস্টুরেন্টস।

স্পাইরাল অফ ইউরোপ, ব্রুসেলস সিটি

‘মেডঅফিস’ নামের ইতালিয়ান এক বিশেষজ্ঞ দল এই সর্পিল আকৃতির ভবনটির নকশা করেছেন। ভবনটির স্থান ও নাম অনেকটা প্রতীকী অর্থে ঠিক করা হয়েছে কারণ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদর দপ্তর এখানে অবস্থিত। প্রকল্পটির মুলে রয়েছে ইউনিয়নের সদস্যদের সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ প্রদর্শন।

সিটি অফ ড্রিম হোটেল টাওয়ার, ম্যাকাউ, চায়না

বিখ্যাত প্রকৌশলী ‘যাহা হাদীদ’ এই নতুন ৪০ তলা উঁচু ৫ ষ্টার হোটেলটির নকশা করেছেন। নকশাকারীর নাম দেখেই বুঝা যায় এটি হবে একটি চিত্তাকর্ষক ভবন।

বায়োনিক টাওয়ার ‘লাভা’, আবু ধাবি

এই অবিশাস্য ভবনটির নকশা প্রকৌশলীর পাশাপাশি একজন জীববিজ্ঞানীর সহায়তায় করা হয়েছে। ভবনটির নকশা গাছের কাঠামো নীতির এবং তাদের প্রতিরক্ষামূলক প্রক্রিয়ার উপর ভিত্তি করে করা হয়।

বায়োনিক সিটি, সাংহাই

আগামী ১৫ বছরের মধ্যে চায়নাতে এই শহরটি নির্মাণ হবে যাতে ১০০,০০০ মানুষের বসবাসের ব্যবস্থা থাকবে। এই প্রকল্পটির নকশা এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছে যেটি আগুন, বন্যা, ভূমিকম্প, ও ঘূর্ণিঝড় প্রতিরোধ করতে পারবে। মূল উঁচু ভবনটির নকশা করা হয়েছে বিখ্যাত সাইপ্রাস গাছের মতো করে। এর সবুজ অংশটি ছোট ছোট খোসার মতো করে তৈরি করা হবে যা প্রচন্ড ঝড়ো বাতাসেও নড়াচড়া করবে না। প্রকল্পটির ভিত্তিপ্রস্তর এমন ভাবে করা হবে যাতে কোনোভাবেই ভবনটি সমস্যা না হয় – অনেকটা সাইপ্রাস গাছের মূলের মতো।

আপনার মতামত...

2018-06-04T06:39:30+00:00
ভালোমন